Diclearation Shil No : 127/12
সিলেট, বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

শিরোনাম :
বালাগঞ্জে দেওয়ান বাজার ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মীসভা || প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বালাগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের দোয়া মাহফিল || বালাগঞ্জে করোনায় ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যানের মৃত্যু || নৌকায় ভোট চেয়ে বালাগঞ্জে মতিউর রহমান শাহীনের গণসংযোগ অব্যাহত || বালাগঞ্জের উন্নয়নের স্বার্থে নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে হবে- কওছর আহমদ || বালাগঞ্জে বনগাঁও মাদ্রাসায় মতিউর রহমান শাহীনের অনুদান প্রদান || বালাগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত || বালাগঞ্জ উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত || নৌকায় ভোট চেয়ে বালাগঞ্জে মতিউর রহমান শাহীনের গণসংযোগ || উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিন : হাবিব ||

সিলেট-৩ এর নৌকা ও ২৫ বছরের মালিকানার বিবরণ!!

-হুসাইন আহমদ

 প্রকাশিত: ২৯, এপ্রিল - ২০২১ - ০৮:০০:১৪ PM

 
নিম্ন তপশীল ব‌র্ণিত সম্প‌ত্তির মূল মা‌লিক বাংলা‌দেশ আওয়ামী লীগ। তাই; আওয়ামী লীগের প্রধান হিসাবে এস এ রেকর্ডীয় মালিক জা‌তির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মু‌জিবুর রহমা‌ন। তিনি ১৯৭৫ সালে মৃত্যুবরন করেন। অতঃপর দেশরত্ন, জন‌নেত্রী, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা উক্ত সম্পত্তিতে তাঁর যোগ্যতার বলে উত্তরাধিকারসুত্রে মালিক হন। অতঃপর উক্ত সম্পত্তি ১৯৮৫ সনে তিনির নামে বি এস খতিয়ানে রেকর্ডভুক্ত হয়। রেকর্ডভুক্ত হওয়ার পর থেকে ধারাবাহিক ভাবে তিনি বিগত ১৯৮৬ সন হই‌তে বাংলা‌দে‌শের ৩০০‌টি এলাকায় প্রতি ৫ বছর অন্তর-অন্তর নতুন ভা‌বে নক্সাকৃত স্থান সমূহে উহা সাফ-মালিকানা দিয়ে আসছেন।
ব‌র্ণিত ৩০০ এলাকার এক‌টি এলাকা সি‌লেট-৩। উক্ত এলাকায় বিগত ২৫ বছর যাবৎ, অর্থাৎ ১৯৯৬ ইং সন হইতে বি এস রেকর্ডীয় মা‌লিক জন‌নেত্রী শেখ হা‌সিন‌া স্বাক্ষ‌রিত খ‌তিয়া‌নে মরহুম মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী সাফ-মা‌লিক থা‌কিয়া ভোগ দখলকার বিদ‌্যমান ছিলেন। অতঃপর তিনি চলতি বছর (২০২১ সন) মৃত্যুবরন করেন এবং তাঁহার মৃত্যুর পর উক্ত এলাকা সাফ-মা‌লিকান‌া শূন‌্য হয়।
এমতাবস্থায় উক্ত সম্পত্তিতে উত্তরাধিকারীসুত্রে সাফ-মালিকানার জন্য মাহমুদ-উস সামাদ চৌধুরীর স্ত্রীসহ আরও প্রায় আড়াই ডজন ব্যক্তি আবেদন করবেন বলে প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে।
যেহেতু ৩ মাসের মধ্যে দেশরত্ন শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত খতিয়ানে সাফ-মালিকানা দেওয়া হবে, সেহেতু রাস্ট বড় ধরনের কোন সমস্যায় না পড়লে উহা অচিরেই সাফ-মালিকের হাতে হস্তান্তর করা হবে।
বাংলাদেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে মৃত ব্যক্তির সম্পত্তিতে তাঁহার উত্তরাধিকারীরা সাফ-মালিকানা পাওয়ার দাবী করে থাকেন। সিলেট-৩ এও এর ব্যতিক্রম হবে না।
আর যদি ব্যতিক্রম হয়, তাহলে হতে পারে এই জন্য যে, মরহুম মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর নিজের ঔরসজাত কোন সন্তান নেই। আছে পালক পুত্র, স‌হোদর ভ্রাতা, বোন, স্ত্রী ও তাদের স্থলাভিষিক্তরা।
সহোদর ভাইয়ের মধ্যে একজন রাজনৈতিক ব্যপারে অনাগ্রহী, অন্যজন বিএনপি-জামাতের পৃষ্টপোষক। তাই আওয়ামী লীগের আইনে উনারা সাফ-মালিকানা পাওয়ার অযোগ্য হিসাবে গন্য হবেন।
এছাড়া উনার বোন বা তাদের উত্তরাধিকারীদেরও কোন আগ্রাহ এখন পর্যন্ত লক্ষ করা যায়নি। বাকী আছেন স্ত্রী। ইতিমধ্যে স্ত্রী সাফ-মালিকানা চাইবেন বলে বিভিন্নসুত্র নিশ্চিত করেছে। তো আমরা যতটুকু জানি তিনি একজন অধিক পর্দাশীল মহিলা এবং শারিরীক ভাবে অসুস্থ্যও বটে। তাছাড়া লোকমুখে শোনা যায় উনার পিতার পরিবার নাকি জামাত অনুসারী এবং সিলেট মহানগর বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক, বিএনপি নেতা ডাঃ শাহরিয়ার চৌধরী নাকি তাঁহার ঘনিষ্ট আত্মীয়।
যদি অধিক পর্দাশীল, অসুস্থ্যতা ও জামাত অনুসারীর বিষয়টি সঠিক হয়, তাহলে এক্ষেত্রে তিনিও সাফ-মালিকানা পাওয়ার অযোগ্য হওয়ার সম্ভাবনা বিদ‌্যমান।
তাহলে কে হতে পারেন নিম্ন তপশীল বর্ণিত সম্পত্তির পরবর্তী সাফ-মালিক? সাধারণ মানুষ কাকে চান? সিংহভাগ দলীয় নেতা-কর্মী কাকে চান? কার দ্বারা এলাকার উন্নয়নে ভূমিকা রাখা সম্ভব? কে সৎ, ত্যাগী ও বিনয়ী? কার রাজনৈতিক ইহিহাস প্রাচুর্যযুক্ত? কে মাঠের রাজনীতিতে সক্রিয়? কে সাধারণ মানুষের পাশে আছেন? কে জনপ্রতিনিধি না হয়েও এলাকার উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছেন? জনপ্রতিনিধি না হয়েও গরীব-অসহায় মানুষের পাশে কে সাহায্য নিয়ে এগিয়ে আসেন? কে পূজিবাদী রাজনীতিতে বিশ্বাস করেন না?
এ সবকটি প্রশ্নের সঠিক উত্তর উত্তরের সাথে যাকে মিলানো যাবে, তিনি যেনো হন নিম্ন তপশীল বর্ণিত সম্পত্তির সাফ-মালিক। তাঁর হাতে যেনো উঠে শেখ হাসিনার স্বাক্ষরযুক্ত সাফ-মালিকানার খতিয়ান। এই প্রত্যাশা রাখছি।
 
তপশীল :: দেশ- বাংলাদেশ, জেলা- সিলেট, উপজেলা- বালাগঞ্জ, দক্ষিণ সুরমা ও ফেঞ্চুগঞ্জ, মৌজা ও জে এল নং- সিলেট-৩, খতিয়ান নং-২৩১, দাগ নং- নৌকা।
 
পূণশ্চ : ১৯৭৫ সালের পর সামরিক শাসক ও স্বৈরশাসক ২১ বছর বাংলাদেশ শাসন করেছিল। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ তথা মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আবার রাষ্ট ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়।
মানুষে ফিরে পায় গনতন্ত্র, ফিরে পায় ভাত ও ভোটে অধিকার, পুরণ হতে শুরু হয় মানুষের মৌলিক অধিকার। সর্বপরী এখন উন্নয়শীল বাংলাদেশ।
 
নোট : ইতিহাস এমনি-এমনি সৃষ্টি হয় না, কর্মের মাধ্যমে মানুষ সৃষ্টি করে।
 
লেখক ঃ সাংবাদিক, কলামিস্ট ও প্রকাশক- সাপ্তাহিক কুশিয়ারার কূল।

আপনার মন্তব্য

এ বিভাগের আরও খবর


সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ

Top