Diclearation Shil No : 127/12
সিলেট, শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ২৭ আষাঢ় ১৪২৭, ১৮ জ্বিলক্বদ ১৪৪১

করোনাকালে বালাগঞ্জের অসহায় মানুষের পাশে নেই জাপা!

 প্রকাশিত: ০১, জুন - ২০২০ - ০৯:১৭:১৯ PM


এস আহমদ ও এএস রায়হান::
করোনাভাইরাসের মহামারিকালে অসহায় মানুষের পাশে নেই অধিকাংশ রাজনৈতিক দল। অসহায় মানুষের কল্যাণে এসব রাজনৈতিক দলের কোনো কর্মসূচিও চোখে পড়েনি। নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ৪৪টি। এর বাইরে অনিবন্ধিত দল আছে আরো প্রায় অর্ধ শতাধিক। সব মিলিয়ে বাংলাদেশে প্রায় শতাধিক রাজনৈতিক রয়েছে। নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বড় একটি অংশকে করোনা মহামহারিতে মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা যায়নি। এদিকে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বালাগঞ্জে বেশ কয়েকটি দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হলেও করোনাকালে এসব রাজনৈতিক দলকে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াননি।

সিলেট-৩ আসনের অন্তর্ভুক্ত বালাগঞ্জ উপজেলা। এই আসনে জাতীয় পার্টির একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন। যারা বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নও চেয়েছিলেন।মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে ছিলেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আতিকুর রহমান আতিক, জেলা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব প্রেসিডিয়াম সদস্য উছমান আলী চেয়ারম্যান ও প্রেসিডিয়াম সদস্য হাজী তোফায়েল আহমদ। করোনাকালে এই মহা দুর্যোগে এসব নেতারা দলীয় নেতাকর্মী কিংবা অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াননি। এতে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ক্ষোভ ও হাতাশা প্রকাশ করেছেন।

তারা বলছেন- আমরা কোনো কিছু পাওয়ার লোভে রাজনীতি করি না। পল্লী বন্ধু হুসাইন মুহম্মদ এরশাদের রাজনৈতিক আদর্শকে আঁকড়ে ধরে পড়ে আছি। আমাদের তো আর সে রকম সক্ষমতা নেই। কিন্তু এ অঞ্চলে যারা জনপ্রতিনিধি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন তারা আমাদের কোনো খোজঁ-খবর নেননি। আর্ত মানবতার সেবায়ও এগিয়ে আসেননি। করেনোভাইরাসের এই মহা সংকটে বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর উপজেলায় জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে নেতারা মানুষকে সহায়তা করেছেন। কিন্তু দু:খের বিষয় বালাগঞ্জের অসহায় মানুষকে সহাতয়তা করতে জাতীয় পার্টির সামর্থবান কোনো নেতা এগিয়ে আসেননি।

এবিষয়ে বালাগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আনহার আলী বলেন, আমরা সংগঠন করছি, পদ-পদবি আছে সেটাই শান্তনা। চলমান মহা দুর্যোগে অসহায় মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতা করার বিষয়ে জেলা কিংবা কেন্দ্রর কোনো নেতা আমাদের সাথে কোনো ধরণের যোগাযোগ করেননি।

অপর দিকে জাতীয় পার্টি ব্যতিত বালাগঞ্জে সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হওয়া অন্যান্য দলের নেতারা বলেছেন, বাংলাদেশে রাষ্ট্র ক্ষমতায় যেসব দলগুলো ছিল তারাই একমাত্র অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী। দুস্থ-অসহায় মানুষদের সহায়তা দেবে সরকার। এছাড়া অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দলগুলো মানুষের পাশে দাঁড়াবে। তাদের দল রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিল না। দলের আর্থিক অবস্থাও ভালো না। ফলে ব্যক্তি উদ্যোগে যাদের সামর্থ্য আছে তারা কেউ কেউ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তবে তাদের আর্থিক অবস্থা অনুযায়ী তারা মানবতার সেবায় কাজ করার চেষ্টা করছেন বলে দাবি করেছেন নিভুনিভু অবস্থায় সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালিত হওয়া ওই সব দলের নেতারা।

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ

Top