Diclearation Shil No : 127/12
সিলেট, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৫ জুমাদিউস-সানি ১৪৪১

এই একবছরে কী পেলাম?

 প্রকাশিত: ০১, জানুয়ারি - ২০২০ - ১২:১৬:১৬ AM

৩০ ডিসেম্বর ২০১৯; একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের একবছর পূর্ণ হলো। এই একবছরে দেশের প্রাপ্তি কী? আশাকরি সচেতন জনগণ সে হিসাব মেলাবেন।

অন্যদিকে, একদল লোককে দেখেছি চিৎকার করতে। দেশে গণতন্ত্র নাই, ভোটের অধিকার নাই, এটা নাই-ওটা নাই...। তাদের চিৎকার আর দাবির ধরন খেয়াল করে দেখেছি তাদের কাছে গণতন্ত্র মানে আরেকটা ১৫ আগস্ট। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আরেকটা ২১ আগস্ট। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আরও এক বা বারবার ১০ ট্রাক অস্ত্র আমদানি। বরেণ্য কূটনীতি ও সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ কিবরিয়াকে হত্যা। শ্রমিক নেতা ও সাংসদ আহসান উল্লাহ মাস্টারকে হত্যা। সাবেক সাংসদ মমতাজ উদ্দিনকে হত্যা। এরকম অজস্র খুনোখুনি মানেই তাদের কাছে ভোটের অধিকার, গণতন্ত্র!

বিএনপির শাসনামলের মত সারাদেশের ৬৩ জেলায় একযোগে বোমা হামলা, সরকারের মন্ত্রীদের মদত আর পৃষ্ঠপোষকতায় জঙ্গি বাংলা ভাইয়ের মানুষ হত্যা করাই যেন তাদের কাছে ভোটাধিকার আর গণতন্ত্র। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় এরকম ঘটনা পৃথিবীর আর কোথাও নাই বিএনপি জামাত জোট সরকারের শাসনামলে বাংলাদেশ ছাড়া।

এদিকে, আমরা বর্তমান বাংলাদেশের দিকে তাকালে কী দেখি? উন্নয়নের বাংলাদেশ। সরকারের স্লোগানে উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ। সর্বক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়া মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ।

বর্তমানে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় হত্যা নেই। রাজনৈতিক খুনোখুনি নেই। জঙ্গিদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা নেই। বিরোধী দলের সাংসদ খুন নেই। বিরোধী রাজনৈতিক সমাবেশে বোমা হামলা বা গ্রেনেড হামলা নেই।

আমাদের জিডিপি জোট সরকারের সময় ছিল মাত্র ৩.২ শতাংশ, যা এখন ৮.৩ শতাংশ। মাথাপিছু আয় ২২শ মার্কিন ডলার। রিজার্ভ বেড়েছে। বিদ্যুৎ জোট সরকারের সময় ছিল মাত্র ৩২শ মেগাওয়াট, যা এখন ৩২ হাজার মেগাওয়াটের ওপরে। লোডশেডিং নাই, পাল্লা দিয়ে বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাড়ছে।

আমরা নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতুর মত বিশাল অবকাঠামো উন্নয়নকাজ করার সক্ষমতা অর্জন করেছি। এই বাংলাদেশ আমরা মাত্র ৯/১০ বছর আগেও কি কল্পনা করতে পেরেছিলাম? আপনি বা আমি কখনই কি এমনটা ভাবতে পারতাম বিদেশি সহায়তা ছাড়া উন্নয়ন? কিন্তু বাস্তবতা হলো বঙ্গবন্ধু কন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা বিদেশি সহায়তা ছাড়াও পদ্মাসেতুর মত বিশাল অবকাঠামো উন্নয়নকাজ করে দেখিয়েছেন এটাই মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ। আমরা পারি। চাইলে আর কেউই এই বাংলাদেশের সামনে এগিয়ে চলার অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দিতে পারেনা, পারবেও না।

আওয়ামী লীগ সরকারের টানা তিন মেয়াদের এই একবছরে বাংলাদেশ উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলেছে। বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোলমডেল এটা বিশ্ব-স্বীকৃত। বৈশ্বিক নানা সূচকে বাংলাদেশের এই উন্নয়নের চিত্র স্বীকৃতিও পেয়েছে। উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলা এই বাংলাদেশ হোক গণতন্ত্রের রোল মডেল। জয় বাংলা!

  • লেখক:: শাহআলম সজীব,
    সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বালাগঞ্জ উপজেলা।
Top