Diclearation Shil No : 127/12
সিলেট, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৩ রবি-উল-আউয়াল ১৪৪১

তিন সন্তান নিয়ে অকুল সাগরে তুহিনের মা

 প্রকাশিত: ১৭, অক্টোবর - ২০১৯ - ১১:৩৫:৫৯ PM - Revised Edition: 30th April 2019

 

কূল ডেস্ক :: কয়েকদিন হল বাবা চাচাদের হাতে নৃশংসভাবে খুন হয়েছে ৫ বছরের শিশু তুহিন। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে এমন হত্যাকান্ড ঘটালে পুলিশের তৎপরতায় শ্রীঘরে তুহিনের বাবা আব্দুল বাসির, দুই চাচা মছব্বির আলী ও নাসির উদ্দিনসহ ৫ জন। তুহিনের চাচা নাসির উদ্দিন ও চাচাতো ভাই  শাহরিয়ার ১৬৪ দ্বারায স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিলেও বাবা আব্দুল বাসির ও চাচা মছব্বির আলী হত্যার দায়স্বীকার না করায় ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এদিকে স্বজনদের দ্বারা শিশু ছেলের নৃশংস খুনের পর বাকরুদ্ধ তুহিনের মা এখন বাবার বাড়িতে শয্যাশায়ী। ১৫ দিনের নবজাতক ও তুহিনের অপর দুই ভাই মাহিন (৭)ও ফাহিম (৩) কে নিয়ে দিশেহারা মনিরা। একদিকে সন্তান হত্যার দায়ে স্বামী পুলিশের খাঁচায় অপরদিকে অবুঝ তিন সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন মনিরা। বাকি দিনগুলো কীভাবে চলবেন সেই প্রশ্নের জবাব খুঁজে পাচ্ছেন না  তিনি । প্রতিবেশিদের কাছ থেকে ছেলে হত্যার বর্ণনা শুনে প্রায় সময়ই মূর্ছা যান মনিরা বেগম।

ছেলে হত্যার সাথে স্বামীর জড়িত থাকার বিষয়টি মানতে চাচ্ছেন না মনিরা। তবে স্বামী আব্দুল বাসির জড়িত থাকলেও তাঁর শাস্তি কামনা করেন তিনি। হত্যার সাথে জড়িত স্বজনদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি কামনাও করেন তিনি।

বুধবার সজেমিনে দিরাই উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের জকিনগর গ্রামে নিহত তুহিনের নানা বাড়ি গিয়ে দেখা যায় শয্যাশায়ী হয়েছেন তুহিনের মা মনিরা বেগম। হত্যার পর থেকে কোন খাবার মুখে দিচ্ছেন না মনিরা। ১৫ দিনের নবজাতকের পাশে বাকরুদ্ধ অবস্থা পড়ে থাকতে দেখা যায় তুহিনের মা মনিরাকে।

তুহিন হত্যার সমবেদনা জানিয়ে কিছু বলার জন্যে অনুরোধ করলে অস্পষ্ট কণ্ঠে মনিরা বলেন, ১৩ অক্টোবর রবিবার রাতে আমি তুহিনকে ঘুম পাড়িয়ে অন্যরুমে ঘুমোতে যাই। ভোর রাত্রে দেখি আমার ছেলে লাশ হয়ে আছে। আমার তুহিনকে পাষন্ডরা হত্যা করেছে।

আমি ছোট তিনটি বাচ্চা নিয়ে কোথায় যাবো? কি করে বাকি দিনগুলো পার করবো? আমি অকুল সাগরের মধ্যে পড়ে গেলাম।

স্বামী আব্দুল বাসির হত্যার সাথে জড়িত থাকার বিষয়ে মনিরা বলেন, আমার ৮ বছরের সংসার জীবনে তিনি আমার সাথে খারাপ আচরণ করেননি। ছেলেদের খুব আদর করতে তিনি। তবে হত্যায় সে জড়িত থাকলে তাঁর বিচার আমি চাই। আর যারা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করেন তিনি।
 
উল্লেখ্য গত ১৩ অক্টোবার রাতে শিশু তুহিনকে জবাই করে হত্যা করে পরিবারের সদস্যরা। তুহিন হত্যাকান্ডের ঘটনায় অজ্ঞাত ১০-১২ জনকে আসামি করে দিরাই থানায় মামলা দায়ের করেছেন তুহিনের মা মনিরা বেগম। এই মামলায় তুহিনের বাবা আব্দুল বাছির, চাচা আব্দুল মুছাব্বির, জমসের, নাছির ও চাচতো ভাই শাহরিয়ারকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। মঙ্গলবার আদালতে নাছির ও শাহরিয়ার হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী দেয়। বাবা আব্দুল বাছির ও দুই চাচাকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। হত্যার বিষয়ে গত মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করেন পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান।

এ বিভাগের​ আরও খবর


Top