Diclearation Shil No : 127/12
সিলেট, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর​ ১৪৪১

শিরোনাম :

জগন্নাথপুরে ১২ বছর ধরে সংস্কার হয়নি দুই সড়ক

 প্রকাশিত: ১২, এপ্রিল - ২০১৯ - ০৯:২৮:৪৮ PM - Revised Edition: 30th April 2019

কূল ডেস্ক : ১৫ বছর  এক যুগেরও বেশী সময়। দীর্ঘ  এই সময়েও সংস্কার কাজ হয়নি দুই সড়কে। এতে জনদুর্ভোগ বাড়ছে প্রতিনিয়িত। অচল হয়ে পড়েছে দুইটি সড়ক প্রায়ই। খানাখন্দ আর ভাঙনে যানবাহন চলাচলে অনুপযোগি সড়কটি মৃতপ্রায়।

জেলার জগন্নাথপুরে জগন্নাথপুর-হবিবপুর-দক্ষিণপাড়া সড়ক ও জগন্নাথপুর-বটেরতল-হবিবপুর মাঝপাড়া সড়ক দুই দৃশ্য এমনটিই।

স্থানীয় বাসিন্দারা জনালেন, ‘২০০৪ সালের বন্যায় দু’টি সড়কের ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরপর থেকে সড়কে সংস্কার কিংবা মেরামতের কাজ হয়নি। আমরা বার বার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আহবান জানিয়ে আসার পরও  সংস্কারের জন্য।’

সরেজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলা সদর থেকে বিশ্বনাথ-রশিদপুর-সিলেট শহরের সঙ্গে কম সময়ে যোগাযোগের বিকল্প সড়ক হিসেবে পরিচিত জগন্নাথপুর-হবিবপুর দক্ষিণপাড়া সড়কটি অযত্ন  অবহেলায় পড়ে আছে।

এলাকার বাসিন্দা শামিনুর রহমান বলেন, ‘এ সড়ক দিয়ে কম সময়ে উপজেলা সদরের সঙ্গে যাতায়াত করতে পারেন জগন্নাথপুরের দক্ষিণ ও পূর্বাংশের লোকজন। অনুরূপভাবে জগন্নাথপুরের উত্তর পশ্চিমাংশের জনসাধারণ স্বল্প সময়ে এ সড়ক দিয়ে বিশ্বনাথ-রশিদপুর-সিলেট সড়কের সঙ্গে যোগাযোগের সুবিধা বেশি।

অন্যদিকে জগন্নাথপুর বটেরতল-হবিবপুর মাঝপাড়া সড়ক দিয়ে নিয়মিত যাতায়াতকারী হবিবপুর এলাকার বাসিন্দা শাহ রুহেল বলেন, ‘সড়কজুড়ে গর্ত, ভাঙন ও খানাখন্দে অচল হয়ে পড়েছে সড়কটি। যাতায়াতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় আমাদেরকে। কয়েক বছর ধরে সংস্কারহীন অবস্থায় পড়ে আছে সড়কটি।’

জগন্নাথপুরের এলজিইডি সূত্র জানায়, ১৯৯৫-৯৬ অর্থ বছরে জগন্নাথপুর-হবিবপুর দক্ষিণপাড়া সড়কের এক কিলোমিটার এবং জগন্নাথপুর বটেরতল-হবিবপুর মাঝপাড়া এলাকায় ৭০০ মিটার সড়কে পাকাকরণের কাজ করা হয়।

তবে জগন্নাথপুরের এলজিইডি কর্মকর্তা গোলাম সারোয়ার বলেন, ‘সড়কটি সংস্কারের জন্য আমরা উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। ইতিমধ্যে জগন্নাথপুর বটেরতল-হবিবপুর মাঝপাড়া সড়কের ৭০০ মিটার সড়ক সংস্কারের জন্য ৫৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়াও শেষ। অচিরেই এ সড়কে কাজ শুরু হবে।

অপরদিকে জগন্নাথপুর-হবিবপুর দক্ষিণপাড়া সড়কের এক কিলোমিটার সড়কের সংস্কারের জন্য প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।’

সর্বাধিক পঠিত

সর্বশেষ

Top